• Home
  • Blog

ফিনিক্স পাখি: রুপকথায়- আগুনে জন্ম যে পাখির

ফিনিক্স পাখির কথা আমরা সবাই শুনি বা জানি, কিনতু আপনি দেখছেন কি কখনও? না দেখা সম্ভব নয়? যে পাখির অস্তিত্ব নেই তা আপনি দেখবন কি ভাবে? কল্পনা আর পৌরণিক রুপকথায় বা পুরাণকথায় (mythology) তে যে পাখির জন্ম ও মৃত্যু নেই, তা কি আদও দেখা সম্ভব ? না কখন ও না?

আসুন জানি ফিনিক্স পাখি নিয়ে প্রচলিত  পৌরণিক  কথা গুলো।

অনেক দিন পর হটাৎ করেই ফিনিক্স পাখি সামনে আসে লেখিকা জে কে রোলিং এর কল্যানে , বুঝতেই  পারছেন হ্যারি পটারের কথা বলছি। হ্যারি পটারের দ্বিতীয় পর্বে লেখিকা পাঠকদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন টুকটুকে লাল এক পোষা ফিনিক্স পাখির, যার অশ্রুজলে সুস্থ হয়ে ওঠে মৃত্যুর মুখে পতিত হ্যারি। যে প্রচলিত মিথের উপর এই ছবির অংশ বিশেষ তৈরী তা হলো - প্রচলিত লোককাহিনী মতে, ফিনিক্স পাখিকে হিংসুকেরা আঘাত করলে এর পালক থেকেও জন্ম নেয় নতুন প্রাণ। এদের চোখের পানিও বদলে দিতে পারে কারও জীবন ।

তখন থেকে হালে নতুন করে সবার সামনে আসে কল্পনার ভালোবাসায় মিশ্রিত অদ্ভুত এক পাখি ফিনিক্স (phoenix)পাখি!

হ্যারি পটার ছবির একটি দৃশ্যে ফিনিক্স পাখি

হ্যারি পটার ছবির একটি দৃশ্যে ফিনিক্স পাখি

ফিনিক্স পাখি নিয়ে মাইথলজি

ফিনিক্স পাখি নিয়ে যে মাইথলজি আছে তা সংক্ষেপে বললে এরকম:

গ্রীক উপকথায়এক চিরঞ্জীব আগুনপাখির নাম ফিনিক্স। গ্রিক ভাষায় phoenix মানে ‘দি ব্রিলিয়ান্ট ওয়ান’ কিংবা পার্পল বা লাল এবং নীলের মিশ্রণে সৃষ্ট রং। প্রাচীন মিথ অনুসারে ওই আগুনরঙা ফিনিক্স পাখিটি ৫০০ বছর বেঁচে থাকত। জীবনের একেবারে শেষ প্রান্তে এসে পাখিটি একটি নীড় তৈরী করত, তারপর সে নীড়ে ধরিয়ে দিত আগুন। সে আগুনে ফিনিক্স পাখিটি পুড়ে  ভস্মিভূত ছাই থেকে আবার জন্ম নিতো আরেকটি অগ্নিবর্ণ ফিনিক্স পাখি। তারপর নতুন ফিনিক্স পাখিটি হেলিওপোলিস নামে প্রাচীন মিশরের একটি নগরে গিয়ে সূর্য দেবতাকে শ্রদ্ধা জানাতে। এমন সব বিচিত্র স্বভাবের অধিকারী ছিল এই ফিনিক্স পাখি।

প্রথম ফিনিক্স পাখির কল্পনায় একোছিলো ফিনিশিয় সভ্যতা। ফিনিশিয় (Phoenicia) সভ্যতা আর ফিনিক্স পাখির গ্রিক নামের মধ্যে একটি যোগসূত্র পাওয়া যায়। প্রাচীন মিশরে ফিনিক্স পাখিকে বলা হত বেনু বা বেন্নু। মিশরীয় ধর্মে এই বেনু পাখি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। আসলে বেনু হল এক ধরণের পার্পল হিরণ। নীল নদের প্লাবনের সময় নীল রঙের সুন্দর এই পাখিটি আশ্রয় নেয় উঁচু জায়গায় । তখন মনে হয় পানিতে সূর্য ভাসছে। এই কারণে এ পাখির নাম হয়েছে ‘উদিত জন’ বা ‘দি অ্যাসেন্ডিং ওয়ান’ মানে, যা উঠছে, যা মনে করিয়ে দেয় সূর্য দেবতা ‘রা ’ কে। প্রাচীন মিশরে আত্মাকে বলা হত,‘বা। বেনু পাখিকে সূর্য দেবতা ‘রা ’ এর আত্মা মনে করা হত। এভাবেই পার্পল হিরণ পাখিটির নাম হয়, বেনু বা বেন্নু।

হেলিওপোলিস মানে সূর্যের নগরী। এটি প্রাচীন মিশরে অবস্থিত ছিল। প্রাচীন হেলিওপোলিস নগরে অধিবাসীরা বেনু পাখি কে ভীষণ শ্রদ্ধা করত।

ফিনিক্স দেখতে অপূর্ব সুন্দর। এর পালক ও লেজ সোনালি ও টকটকে লাল রঙের। কারণ, লাল রং সূর্যের প্রতীক। ফিনিক্স পুর্নজন্ম ও নিরাময়ের প্রতীক। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পর নতুন জীবনের দিকনির্দেশনা। সূর্যের অস্ত যাওয়া ও উদয় হওয়া মানবজীবনের জীবন-মৃত্যুর রূপকও বটে। ফিনিক্স পাখি কে মনে করা হতো শান্তির প্রতীক রুপে ।

কল্পনার ফিনিক্স পাখি

কল্পনার ফিনিক্স পাখি

অন্য পুরাণ কাহিনী অনুযায়ী ফিনিক্স পাখির পুড়ে যাওয়া ছাই ডিমের আকারে মমি করে মিসরের সূর্য শহর কিংবা গ্রিসের দ্য সিটি অব সান-এ রেখে দেওয়া হয়। একদিন ওই ছাইয়ের ডিম থেকেই পাখিটি পুনর্জন্ম লাভ করে এবং দেবপাখির প্রতীক হয়ে যায় গ্রিকদের কাছে।
ফিনিক্স পাখি খ্রিস্টানদের শিল্পকলা, সাহিত্য ও প্রতীক বাদে খুব দ্রুত পুনরুত্থিত হয় এবং তা খুব জনপ্রিয়ও হয়। খ্রিস্টানরা তাকে তাদের পুনরুত্থান, অমরত্ব ও মৃত্যুর পর জীবিত হওয়ার প্রতীকও মনে করতে থাকে। এই গ্রিক ফিনিক্স পাখি পরবর্তী সময়ে পৃথিবীর অনেক সভ্যতায় ঐশ্বরিক প্রতীক হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। পরবর্তী সময়ে রোমান চিত্রকলায় ফিনিক্স ঈগলরূপে প্রতিষ্ঠা পায়।

ফিনিক্স; শিল্পী Friedrich Johann Justin Bertuch (1747-1822)

ফিনিক্স পাখি ; শিল্পী Friedrich Johann Justin Bertuch (1747-1822)

পারস্যের লোককাহিনী অনুযায়ী মহাবীর রুস্তমের বাবা জাল এই প্রতীক পাখিকে সযত্নে লালন করেছিলেন। গৃহহীন এই পাখিকে তিনি পেয়েছিলেন আলব্রুজ পাহাড়ে।
লেবানন তাদের প্রাচীন এবং আধুনিক সংস্কৃতির প্রধান বাহক মনে করে ফিনিক্সকে। লেবানন ও বৈরুতের ইতিহাসে এই প্রতীকের ভাস্কর্য সাতবার ধ্বংস ও পুননির্মাণ করা হয়েছে।

চলুন জেনে নিই অন্য পুরাণগুলোয় কী নামে পরিচিত এই পাখি!

  • ইহুদী - মিলশাম
  • হিন্দু – গরুড়
  • রাশিয়ান – আগুনপাখি/ ফায়ারবার্ড
  • পার্সি – সিমোর্গ
  • চৈনিক – ফেংহুয়াং, যু কুয়ে
  • তিব্বতীয় – মে বাই কার্মো
  • তুর্কি – যুম্রুদু আঙ্কা
  • আরব্য – আঙ্কা
  • জর্জিয়ান – পাস্কুঞ্জি
  • জাপানিজ – হোওয়ু
  • নেটিভ আমেরিকান – বজ্রপাখি/ থান্ডারবার্ড

আর এশিয়া মহা দেশে অনেকে সংস্কৃত উচ্চারণে ‘গরুড়’ পাখিকে ফিনিক্স পাখির সাথে মিল খুঁজে পান । রামায়ণে এর উল্লেখে পাওয়া যায়। গরুড় হলো দেবতা বিষ্ণুর বাহন।

এখানে ইহুদি পুরাণে  দেখা যায়  মিলহাম পাখি বা হল পাখি ফিনিক্স নামে পরিচিত। ইহুদীদের মিদ্রাশ রাব্বাহ অনুসারে, হযরত আদম (আ:) ও বিবি হাওয়া (আঃ) যখন বেহেশতে ছিলেন তখন শয়তানের ধোঁকায় পড়ে নিষিদ্ধ ফল খান। তখন নাকি তিনি খুব দুঃখিত হন এবং ঈর্ষান্বিত হয়ে স্বর্গের অন্য সকল প্রাণীকেও সেধে সেধে খাওয়ান। (নাউজুবিল্লাহ)।কিন্ত সে সময় মিলহাম সেটি খায় নি । ফলে ঈশ্বর মানুষ ও অন্যান্য প্রাণীকে মরণশীল প্রাণী হিসেবে পৃথিবীতে পাঠিয়ে দিলে ফিনিক্স পাখির উপর খুশি হয়ে তাকে অমরত্ব দান করেন!

কবি সাহিত্যিকেরা ফিনিক্সের ব্যবহারে পিছিয়ে নেই ।  সাহিত্য যে কত ভাবে এসেছে  ফিনিক্স পাখির কথা তা লিখতে গেলে আলাদা করে লিখতে হবে, যেমন- শেক্সপিয়ারের Henry VIII নাটকের পঞ্চম অংকের পঞ্চম দৃশ্যে, রাজা বলছেন-

“Nor shall this peace sleep with her; but as whenThe bird of wonder dies, the maiden phoenix,Her ashes new create another heirAs great in admiration as herself…”

Click to Tweet

ফরাসি সাহিত্যিক ও দার্শনিক ভলতেয়ার ফিনিক্সের বর্ণনা দিয়েছেন এভাবে- ‘ফিনিক্সের আকৃতি ঈগলের মতো বিশাল কিন্তু চোখগুলো নিষ্ঠুর ও ভীতিকর নয়, নির্দয় ঈগলের তুলনায় নিরীহ ও সংবেদনশীল। ঠোঁটগুলো গোলাপের মতো। গ্রীবা ও ঘাড় রংধনুসদৃশ বা এর থেকেও দীপ্তিমান। পালকগুচ্ছে খেলা করে স্বর্নালি ছায়াচ্ছন্নতা। বেগুনি-লাল বা রুপালি তার পদযুগল’।

"বুকের মাঝে ডানা ঝাপটায় ফিনিক্স পাখি

নিজেই নিজের আগুনে পুড়ে যায় 

অক্ষত থেকে আবার বের হয় নতুন ক্ষত বুকে নিতে"

আমদের দেশের কবি সাহিত্যকরা ও ফিনিক্স পাখি কে ছাড়ে নি যেমন- শাহীন মাহমুদ এর "জেগে ওঠে ফিনিক্স পাখি", জাহিদ হোসেনের -"ফিনিক্স "। 

সবশেষ কথা ফিনিক্স পাখি ছিলো কিনা, থাকলে কেমন ছিলো তা এখন আর জানা  সম্ভব না তাই কল্পনায় বেচে থাকুক যুগ যুগ, শিল্পীর তুলিতে, কবির কবিতায়, মানুষের কল্পনায় 


সূএ:

https://en.wikipedia.org/wiki/Phoenix_(mythology)

https://www.ancient-origins.net/myths-legends/ancient-symbolism-magical-phoenix-002020

https://mythology.net/mythical-creatures/phoenix/

ও দেশী নানান ব্লগ ।

Click Here to Leave a Comment Below 0 comments

Leave a Reply:

Facebook43
Pinterest27
Instagram
Open chat
1
আমার সাথে যোগাযোগ করার জন্য ধন্যবাদ।